শ্বসনের, কোষ থেকে কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর

 1.শ্বসনের দুটি উদ্দেশ্য লেখাে।

উত্তর : শ্বসনের দুটি উদ্দেশ্য হল:

       [i] শক্তি উৎপাদন,

      [ii] বিভিন্ন বিপাকীয় কার্য নিয়ন্ত্রণ করা।

  


2. শ্বসনের খাদ্যমধ্যস্থ শক্তির মুক্তি ঘটে-ব্যাখ্যা করাে।

উত্তর : প্রতিটি সজীব কোশে অক্সিজেনের উপস্থিতি বা অনুপস্থিতিতে খাদ্যবস্তুর জারণই হল শ্বসন। প্রতিটি সজীব কোশে শসনক্রিয়া ঘটে, শ্বসনের ফলে কার্বন ডাইঅক্সাইড, জল ও শক্তি উৎপন্ন হয়। এই উৎপাদিত শক্তি জীবদের যাবতীয় দৈহিক কার্যাবলি নিয়ন্ত্রণ করে। শ্বসনই হল একমাত্র পদ্ধতি যেখানে খাদ্যবস্তুর জারণ ঘটে ও শক্তি উৎপাদন হয়। এই শক্তি আসে সূর্য থেকে, যা সালােকসংশ্লেষ প্রক্রিয়ায় খাদ্যের মধ্যে উৎসেচক আবদ্ধ হয়। 

    খাদ্যবস্তু (সৌরশক্তি) ➡ 

শক্তি + জল + কার্বন ডাইঅক্সাইড, তাই শ্বসনকে শক্তির মুক্তি বলে।

3.সবাত শ্বসন কাকে বলে ?

উত্তর : যে-শ্বসন পদ্ধতিতে মুক্ত অক্সিজেনের উপস্থিতিতে জীবকোশথ খাদ্যশক্তি (প্রধানত গ্লুকোজ) সম্পূর্ণরূপে ভেঙে গিয়ে কার্বন ডাইঅক্সাইড, জল ও বেশি পরিমাণ শক্তি উৎপাদন করে, তখন তাকে সবাত শ্বসন বলে।

4. মদ ও বিয়ার শিল্পে ইস্ট ব্যবহার করা হয় কেন ?

উত্তর : ইস্ট এককোশী জীব, যা বায়ুর অনুপস্থিতিতে অবাত শ্বসনের মাধ্যমে শ্বাসকার্য চালায়। এক্ষেত্রে অক্সিজেনের অনুপস্থিতিতে কোশস্থ খাদ্য ভেঙে CO, ও অ্যালকোহল উৎপন্ন হয় এবং সামান্য খাদ্যস্থ শক্তির মুক্তি ঘটে। এ কারণে মদ ও বিয়ার শিল্পে ইস্ট ব্যবহার করা হয়।

5. সবাত শ্বসনের ফলে কী কী উৎপন্ন হয় ?

  উত্তর : জল, কার্বন ডাইঅক্সাইড ও শক্তি।

6. অবাত শ্বসন কাকে বলে ?

উত্তর : যে-শ্বসন প্রক্রিয়ায় কোশের ভিতরের খাদ্যশক্তি প্রধানত অবায়ুজীবী জীবকোশে অক্সিজেনের অনুপস্থিতিতে আংশিকভাবে ভেঙে গিয়ে কার্বন ডাইঅক্সাইড, জল, বিভিন্ন জৈব যৌগ এবং অল্প পরিমাণ শক্তি উৎপন্ন করে, তাকে অবাত শ্বসন বলে।

গ্লুকোজ + অক্সিজেন +  উৎসেচক + অক্সিজেন যুক্ত যৌগ + জল + O2 + তাপশক্তি ।

7. কোশ কী ? কোশের কাজ করার জন্য প্রয়ােজনীয় শক্তির উৎস কী ? কোশের কাজ কী ?

উত্তর : প্রতিটি জীবদেহ কতকগুলি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র আণুবীক্ষণিক একক দ্বারা গঠিত, যা জীবদেহের গঠনগত ও কার্যগত এককরূপে কাজ করে, এদের কোশ বলে। আমরা যে-খাদ্য গ্রহণ করি, সেই খাদ্যের মধ্যে শক্তি নিহিত থাকে। শ্বসনের মাধ্যমে খাদ্যমধ্যস্থ শক্তির মুক্তি ঘটে। এই শক্তিই কোশের কাজ করার জন্য প্রয়ােজনীয়।

8. কোশের কাজ কী ?

কোশের কাজ:

        [i] শ্বসন ও শ্বাসক্রিয়ার মাধ্যমে যেকোনাে কাজের জন্য শক্তি উৎপাদন।

       [ii] জীবনের সব মৌলিক ধর্ম ও কাজ সম্পন্ন করা, যথা—

পুষ্টি, সংবহন, জনন, রেচন ইত্যাদি।

       [iii] প্রতিটি কোশ তার নিজের প্রজননশীলতার মাধ্যমে কলা, অঙ্গ ও তন্ত্র গঠনের মাধ্যমে এইসব কাজগুলি সম্পন্ন করে।



Post a Comment

Previous Post Next Post