মিররলেস এবং DSLR এর মধ্যে পার্থক্য (What is the difference between a Mirroless and a DSLR)

মিরিরলেস এবং DSLR এর মধ্যে পার্থক্য


     একটি ক্যামেরাকে Mirrorless বলে কারণ তারমধ্যে Mirror অর্থাৎ এই ধরণের  ক্যামেরা থেকে আয়নাকে সরানো হয়েছে । অর্থাৎ প্রথম লটের ডিএসএলআর ক্যামেরা গুলোর মধ্যে আয়না ফিট করা থাকে । এই হল Mirrorless এবং DSLR এর মধ্যে প্রধান গঠনগতভাবে পার্থক্য।



 আরেকটু বুঝিয়ে বলছি DSLR মানে কী?
    ডিএসএলআর হলো digital single lens reflex — Reflection অর্থাৎ প্রতিফলন এর নীতি ব্যবহার করে ক্যামেরা গুলি ব্যবহার করা হয় । আর আমরা জানি প্রতিফলনের জন্য অবশ্যই একটি আয়নার প্রয়োজন হয়। তাহলে ক্যামেরার কার্যনীতি একটু বুঝতে হবে। শুধু যে রিফ্লেকশন কে ব্যবহার করে এই ক্যামেরা বানানো হয় ঠিক তা না এই ক্যামেরার মধ্যে অনেক মেকানিজম থাকে প্রথম সময়ে এই ক্যামেরার কে SLR বলা হত , পরবর্তী কালে DSLR বলা হয়। লিখিত ভাষায় তফাৎ শুধু ডিজিটাল এবং নন ডিজিটাল এর।



           লেন্সের মাধ্যমে গঠন হওয়া ছবি সাধারণভাবে ফিল্ম বা আলো-ছবি থেকে electric wave গঠন করবার একটি বিশেষ পর্দাতে পড়লেই ছবি বন্দি হয় পর্দায়, নয়ত ডিজিটাল কোনও মাধ্যমে। কিন্তু যতক্ষণ না ফিল্ম রাসায়নিকের মাধ্যমে "ডেভেলাপ" হয়, ততক্ষণ তা থাকে রহস্য।

          সাধারণ ক্যামেরার দুটি লেন্স থাকে, একটি ফিল্ম এর উপর ছবি তৈরি করে, আরেকটি সামান্য আলাদা একটি ছবি দেখায় আমাদের চোখে। আর ক্যামেরাতে যার মাধ্যমে আমরা চোখ দিয়ে দেখতে পাই এটিকে ভিউফাইন্ডার বলে। আসল video এর কারিকুরি ভিউ ফাইন্ডারে এ ধরা পড়ে না। তাই ছবি তোলা অনেকটাই আন্দাজ করে হয়। বলাই বাহুল্য, এতে অত্যন্ত পারদর্শী ফোটোগ্রাফার ছাড়া এ জাতীয় ক্যমেরায় একদম সাদামাটা ছবি ওঠে, তা যত ভালো লেন্সই হোক না কেন।

        SLR ক্যামেরায় তাই একই লেন্সের মাধ্যমে ছবি চোখে দেখা এবং ফিল্মের উপর ফেলা হয়। কিন্তু এতে একটু সমস্যা থাকে — একই সাথে পরিষ্কার ছবি তো দুই জায়গায় ফেলা সম্ভব না। এইখানেই কাজে আসে একটি আয়না। ফিল্মে ছবি বন্দি করতে সাধারণতঃ এক সেকেন্ডেরও কম সময় লাগে। সেই সময়ের জন্য একটি কব্জার সাহায্যে আয়নাটির মুখ এমন ভাবে ঘুরিয়ে দেওয়া হয় যাতে ছবি তৈরি হয় ফিল্মের উপর। বাকি সময়ে ছবি তৈরি হয় চোখে দেখার আরেকটি ব্যবস্থার মধ্যে, যাকে "আই পিস" বলা হয়। এতে যা ছবি, বা লেন্সের কারিকুরি, সব এক ভাবে দু দিকে প্রায় সমানভাবে ধরা পড়ে। "প্রায়" বলেছি, তার কারণ ছবি তোলবার মুহূর্তে আয়না সরে যাওয়ার জন্য view finder এ কিছুই দেখা যায় না। তাই যা চোখে দেখা যায়, তা ছবিতে নাও উঠতে পারে। ১০০% সম্ভাবনা না থাকায় তাই অনেক "চোখে দেখা" ছবি ফিল্ম বন্দি করা যায় না।



         ডিজিটাল ক্যমেরায় আলাদা view finder প্রয়োয়ন হয় না। যে elective wave চিপ বা কার্ডে রেকর্ড করা হয়, সাথে সাথে একই ছবি একটি ছোট্ট পর্দায় বা স্ক্রিন এ দেখতেও পাওয়া যায়। তাই আয়নার প্রয়োজন হয় না। এবার, SLR ক্যামেরার মত জটিল এবং দামি লেন্স যদি একটি ডিজিটাল ক্যামেরায় দেওয়া যায়, তাহলে আমরা পাই DSLR ক্যামেরা।

সাধারণ DSLR ক্যামেরায় SLR ক্যামেরার মতই, আয়না থাকে। সেটায় DIGITAL হওয়ার সব সুবিধা পাওয়া যায় না। MIRRORLESS ক্যামেরায় আয়না না থাকায় তা আকারেও ছোট হয়, যদিও তাতে DSLR ক্যামেরার সব বৈশিষ্টই থাকে।

Post a Comment

Previous Post Next Post